চট্টগ্রাম-৮ আসনের উপনির্বাচনে ভোট গ্রহণ চলছে

চট্টগ্রাম-৮ আসনের উপনির্বাচনে ভোট গ্রহণ চলছে

নিজস্ব প্রতিবেদক : চট্টগ্রাম-৮ সংসদীয় আসনের উপনির্বাচনে ভোট গ্রহণ চলছে। আসনের ১৭০টি কেন্দ্রের সবগুলোতেই ভোট হচ্ছে ইভিএম’র (ইলেক্ট্রনিক ভোটিং মেশিন) মাধ্যমে।

সোমবার সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত একটানা ভোটগ্রহণ চলবে।

সাধারণ ভোটারদের অনাগ্রহ এবং প্রধান দুই প্রতিদ্বন্দ্বীর পাল্টাপাল্টি অভিযোগের পরই আজ হচ্ছে দুই প্রার্থীর মর্জাদার লড়াই।

নির্বাচনে জয়ের ব্যাপারে দৃঢ় আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন প্রধান দুই প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগের মোছলেম উদ্দিন আহমদ ও বিএনপির আবু সুফিয়ান।

এদিকে সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচনের জন্য পুলিশের পাশাপাশি মোতায়েন করা হয়েছে বিজিবি ও র‌্যাব।

এছাড়া ১৬ জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও ২ জন জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট বিজিবির সঙ্গে মোবাইল টিমে রয়েছে।

এর আগে রোববার বিকাল থেকেই বিজিবি নির্বাচনী এলাকার বিভিন্ন স্থানে টহল শুরু করে।

গত বছরের ৭ নভেম্বর ভারতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় এই আসনের সংসদ সদস্য জাসদের কার্যকরী সভাপতি মাঈনউদ্দীন খান বাদল মারা যাওয়ায় চট্টগ্রাম-৮ আসনটি শূন্য হয়। এরপর ১ ডিসেম্বর এ আসনে উপনির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন।

আসনটি চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের ৩, ৪, ৫, ৬ ও ৭নং ওয়ার্ড এবং বোয়ালখালী উপজেলার কধুরখীল, পশ্চিম ও পূর্ব গোমদন্ডী, শাকপুরা, সারোয়াতলী, পোপাদিয়া, চরণদ্বীপ, আমুচিয়া ও আহলা করলডেঙ্গা ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত।

মোট ভোটার ৪ লাখ ৭৫ হাজার ৯৮৮। এর মধ্যে পুরুষ ২ লাখ ৪১ হাজার ৯২২ ও নারী ২ লাখ ৩৪ হাজার ৭৪ জন। শুধু বোয়ালখালী উপজেলায় ভোটার সংখ্যা ১ লাখ ৬৪ হাজার।

এদিকে সাধারণ ভোটাররা জানান, মূল প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের প্রার্থী দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোছলেম উদ্দিন আহমদ ও বিএনপির প্রার্থী আবু সুফিয়ানের মধ্যে। এর বাইরে আরও ৪ জন প্রার্থী থাকলেও তাদের প্রচার-প্রচারণা তেমন নেই।

ওই চার প্রার্থী হলেন- বাংলাদেশ ন্যাশনালিস্ট ফ্রন্ট (বিএনএফ) চেয়ারম্যান এসএম আবুল কালাম আজাদ, ইসলামিক ফ্রন্ট বাংলাদেশের সৈয়দ মোহাম্মদ ফরিদ আহমদ, স্বতন্ত্র প্রার্থী এমদাদুল হক ও ন্যাপের বাপন দাশগুপ্ত।

জেলা নির্বাচনী অফিসের কর্মকর্তারা জানান, প্রিসাইডিং অফিসারের নেতৃত্বে কর্মকর্তারা রোববার বিকালেই নির্বাচনী সামগ্রী নিয়ে কেন্দ্রে কেন্দ্রে যান। কেন্দ্রে ইভিএম পরিচালনায় কারিগরি সহযোগিতা করবেন সেনা সদস্যরা। প্রতিটি ভোটকেন্দ্রে ৪-৫ জন পুলিশ ও ১১ জন আনসার সদস্য দায়িত্ব পালন করছে।

মোতায়েন করা হয়েছে ৫ প্লাটুন বিজিবি ও ৬ প্লাটুন র‌্যাব। এছাড়া ১৬ জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও ২ জন জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট বিজিবির সঙ্গে মোবাইল টিমে রয়েছে।

সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা মুনীর হোসাইন খান সোমবার বলেন, খুব সুন্দর নির্বাচনী পরিবেশ রয়েছে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা এলাকায় টহল দিচ্ছে।

সংবাদটি শেয়ার করতে এখানে ক্লিক করুন




All rights reserved © Prothom Kantho
Design BY Code For Host, Inc