সখীপুরে জীবিকার তাগিদে রাস্তায় নিম্ন আয়ের মানুষ

সখীপুরে জীবিকার তাগিদে রাস্তায় নিম্ন আয়ের মানুষ

এম জাকির হোসেনঃ

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে দেয়া কঠোর বিধিনিষেধের মধ্যেও অনেকেই বেরিয়েছেন রাস্তায়। বিধিনিষেধের গতকাল মঙ্গলবার সখীপুর উপজেলার বিভিন্ন এলাকার সড়ক ঘুরে এমন মানুষ দেখা গেছে। তারা বলছেন, সরকার বিধিনিষেধ দিয়েছে, তারাও এর পক্ষে। কিন্তু তাদের পেট চলবে কীভাবে? সংসার চলবে কীভাবে? সরকারের কোনো সাহায্য তাদের কাছে যাচ্ছে না। তারা বাধ্য হয়ে রাস্তাায় আসছেন।

 

মঙ্গলবার সখীপুর গাড়িতে করে কলা ও লেবু বিক্রি করছিলেন শাজাহান মিয়া। তিনি বলেন, ঝুঁকি নিয়া বাইর হইছি ঠিকই, বিক্রি কই! মানুষ নাই বেচমু কার কাছে? আবার না বাইরাইয়াও তো উপায় নাই। সংসার চলব কেমনে? তিনি বলেন, আমার দুই ছেলে, এক মেয়েসহ ৫ জনের সংসার। লকডাউনের কারণে বড় বিপদে পইড়া গেছি পরিবার নিয়া। ধার-দেনা কইরা কোনো রকম সংসার চালাইতাছি।

 

আবুল হোসেন বলেন, ইজিবাইক চালানো নিষেধ। তারপরও যাত্রীর আশায় আইছি। যেকোন সময় পুলিশে আসতে পারে। ভয়েই অস্থির হয়ে আছি, কী যাত্রী ডাকুম। পুলিশ দেখলে রাস্তা থুইয়া চিপা-চাপায় ঢুকাইয়া দেই।

 

 

ভ্যানে মালামাল পরিবহন করেন আতিক। তিনি জানান, লকডাউনে কাজ নেই। ভ্যানে এখন মালপত্রের পরিবর্তে মানুষ বহন করছেন। সখীপুর থেকে পাথার এলাকায় যেতে ডেকে ডেকে ভ্যান ভর্তি করে ফেলেছেন যাত্রীতে। আতিক বলেন, সরকার তো লকডাউন দিয়াই খালাস। আমাগো জন্য কী করল, আমাগো প্যাটে তো ভাত নাই। বাচ্চা-কাচ্চা আছে, মা-বাপ আছে। কাম করতে না পারলে কী খামু আমরা! সরকারের সাহায্য-সহযোগিতা তো দূরর কথা একটা দানা পর্যন্ত এহনও পাই নাই। বেশী যাত্রী টানতাছি বুঝতে পারলে কোনো কথা ছাড়াই দৌড়ানি দিব পুলিশ। এর মধ্যে পরাই মাস শেস ঘর ভাড়াও দেন নাগবো। দেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ পরিস্থিতি উদ্বেগজনক পর্যায়ে চলে যাওয়ায় গত কয়েক মাস ধরে বিধিনিষেধ আরোপ করে তা নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করছে সরকার। ঈদুল আজহাকে সামনে রেখে আটদিনের জন্য শিথিল করা হয়েছিল বিধিনিষেধ। এরপর আবার গত শুক্রবার (২৩ জুলাই) সকাল ৬টা থেকে আগামী ৫ আগস্ট মধ্যরাত পর্যন্ত কঠোর বিধিনিষেধ দিয়েছে সরকার। বিধিনিষেধের মধ্যে বন্ধ আছে সব ধরনের গণপরিবহন, সরকারি ও বেসরকারি অফিস এবং শিল্পকারখানা। বন্ধ রয়েছে দোকান এবং শপিংমল। জরুরি প্রয়োজন ছাড়া মানুষর বাইরে বের হওয়া নিষেধ।

সংবাদটি শেয়ার করতে এখানে ক্লিক করুন




All rights reserved © Prothom Kantho
Design BY Code For Host, Inc